1. admin@dainikbangladeshtimes.com : rony :
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০১:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
তালার শিল্পকলা একাডেমিতে দলিত নারীদের সামাজিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত। তালার শিল্পকলা একাডেমিতে কিশোরীদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত বৈষম্য দুরীকরণের দাবিতে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে কর্মবিরতি। বাল্যবিবাহ ও ড্রপ-আউট প্রতিরোধে ডিইএফ’র কিশোরীদের ডোর টু ডোর ক্যাম্পেইন করার উদ্যোগ গ্রহন তালা উপজেলা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে চেয়ারম্যান পদে ঘোষ সনৎ কুমারের মনোনয়নপত্র দাখিল আজ ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আগামীকাল, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ৪নং কুমিরা ইউনিয়ন শাখার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বাসুদেব দাশের পক্ষ থেকে বিনম্র শ্রদ্ধা চৈত্র সংক্রান্তিতে উদযাপিত হলো চড়ক পূজা, জেনে নিন এই উৎসবের ইতিহাস দৈনিক বাংলাদেশ টাইমস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাসুদেব দাশ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তালায় কিশোরীদের উপবৃত্তি প্রদান এবং বাল্য বিবাহ ও ড্রপ-আউট প্রতিরোধ বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য প্রাচীন কৃষি সেচ যন্ত্র দোন কিংবা সেঁউতি আজ বিলুপ্তির পথে

সাংবাদিক নাম
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ১০৬ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদন: গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য প্রাচীন কৃষি সেচ যন্ত্র দোন কিংবা সেঁউতি আজ বিলুপ্তির প্রায়।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্যাণে দেশের প্রতিটি শাখায় এখন আধুনিকায়নের ছোঁয়া। আর সেই আধুনিক প্রযুক্তির যান্ত্রিক সভ্যতার যাঁতাকলে দেশ থেকে প্রায় বিলুপ্তির পথে প্রাচীন সব কৃষি সেচ যন্ত্র।

এর মধ্যে বিলুপ্ত প্রায় কৃষি কাজে এক সময়ের কৃষকের পানি সেচের দোন কিংবা সেঁউতি।

টিন বা বাঁশ দিয়ে তৈরি ঐতিহ্যবাহি এ সেঁউতি আগেকার দিনে ফসলী জমিতে পানি সেচ ব্যবস্থায় ব্যবহার করা হতো। এক সময় গ্রাম বাংলার কৃষিতে সেচযন্ত্র হিসেবে সেঁউতির ব্যাপক চাহিদা ছিলো। টিন আর বাঁশের চাটাই দিয়ে তৈরি সেঁউতি দুই দিকে রশি লাগিয়ে খাল বা নিচু জমি হতে উপরে পানি তোলা হতো। আর উঁচু নিচু জমিতে পানি সেচ দিতে সেচযন্ত্র টিনের সেঁউতি ছিল অতুলনীয়।

এটি প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রান্তিক কৃষকরা প্রাচীন যুগেই আবিস্কার করেছিল। টিন আর বাঁশ দিয়ে ত্রিকোণ আকৃতির দুই দিকে রশি লাগিয়ে দুজন মানুষ মিলে পানি সেচ করা হতো। এতে করে পানি সেচ দিতে শ্রমিক ব্যতীত অতিরিক্ত কোন প্রকার খরচ হয় না।

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের কৃষক ছোবান আলী(৬৫) জানিয়েছেন, সেঁউতি দিয়ে সেচ দেওয়া খুব মজার কাজ। একটি টিন ও বাঁশ দিয়ে খুব সহজে তৈরি করা যেত। বাপ দাদা সহ জমিতে গিয়ে দু’জন মিলে দুই দিকে রশি লাগিয়ে নিচে থেকে পানি উপরে তুলে উঁচু জমি গুলো সেচ দিতাম। সেঁউতি তৈরিতে তেমন খরচ হতো না। বর্তমানে আধুনিক যন্ত্রপাতি আগমনে আর চোখে পড়েনা সেঁউতির ব্যবহার।

উপজেলা সদরের সরকারি কলেজের একাদশ দ্বাদশ শ্রেনির ছাত্র মফিজ, কৌশিক, পবিত্র, মামিননুর সহ অনেকে জানান, তাঁরা কখনো সেঁউতি দেখেনি। তবে বই পড়ে জেনেছেন, কয়েক যুগ আগে এটি কৃষি কাজে ব্যবহারের ক্ষেত্রে খুব জনপ্রিয় ছিলো।

এই সংবাদ টি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
আমাদের এই খানে প্রকাশিত সংবাদ সম্পুর্ন আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোনো প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পুর্ন দায়ী থাকবে নিউজ প্রেরণ কারী সাংবাদিক।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It
error: Content is protected !!