1. admin@dainikbangladeshtimes.com : rony :
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০২:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
তালার শিল্পকলা একাডেমিতে দলিত নারীদের সামাজিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত। তালার শিল্পকলা একাডেমিতে কিশোরীদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত বৈষম্য দুরীকরণের দাবিতে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে কর্মবিরতি। বাল্যবিবাহ ও ড্রপ-আউট প্রতিরোধে ডিইএফ’র কিশোরীদের ডোর টু ডোর ক্যাম্পেইন করার উদ্যোগ গ্রহন তালা উপজেলা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে চেয়ারম্যান পদে ঘোষ সনৎ কুমারের মনোনয়নপত্র দাখিল আজ ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আগামীকাল, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ৪নং কুমিরা ইউনিয়ন শাখার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বাসুদেব দাশের পক্ষ থেকে বিনম্র শ্রদ্ধা চৈত্র সংক্রান্তিতে উদযাপিত হলো চড়ক পূজা, জেনে নিন এই উৎসবের ইতিহাস দৈনিক বাংলাদেশ টাইমস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাসুদেব দাশ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তালায় কিশোরীদের উপবৃত্তি প্রদান এবং বাল্য বিবাহ ও ড্রপ-আউট প্রতিরোধ বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে সুসাহিত্যিক কাজী ইমদাদুল হকের ১৪০তম জন্মজয়ন্তী পালিত

শেখ খায়রুল ইসলাম ।।
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫২ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি: আজ ৪ নভেম্বর।দেশ বরেণ্য সু-সাহিত্যিক কাজী ইমদাদুল হকের ১৪০তম জন্মজয়ন্তী। এ উপলক্ষে শিবসা সাহিত্য অঙ্গন সহ তাঁর নিজ গ্রাম পাইকগাছার বিভিন্ন সাহিত্য সংগঠন আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি’র আয়োজন করেছে। প্রসঙ্গত, বিংশ শতাব্দীর সূচনা লগ্নে বৃটিশ ভারতে যেসকল বাঙালি মুসলমান মননশীল গদ্য লেখক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন কাজী ইমদাদুল হক তাদের অন্যতম।

তৎকালীন মুসলিম সমাজে তিনি এক ব্যতিক্রমী প্রতিভার অধিকারী হিসেবে সাহিত্যাঙ্গনে আবির্ভূত হন। তিনি ছিলেন, একাধারে কবি,প্রবন্ধকার, ঔপন্যাসিক, ছোট গল্পকার ও শিশু সাহিত্যিক। অসমাপ্ত আব্দুল্লাহ উপন্যাসের রচয়ীতা সু-সাহিত্যিক কাজী ইমদাদুল হক ১৮৮২ সালের ৪ নভেম্বর খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার গদাইপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা কাজী আতাউল হক পেশায় একজন আইনজীবী ছিলেন।

ইমদাদুল হক ছিলেন পিতার একমাত্র সন্তান। তিনি ১৯০৩ সালে কলকাতার মাদ্রাসায় অস্থায়ী শিক্ষক পদে নিয়োগ লাভ করেন। এরপর তিনি ১৯০৬ সালে আসামের শিলংয়ে শিক্ষা বিভাগে উচ্চমান সহকারী পদে চাকুরি করেন। ১৯০৭ সালে ঢাকা মাদ্রাসার শিক্ষক পদে নিযুক্ত হন। তার ভূগোল শিক্ষার একটি আদর্শ শিক্ষা প্রণালী শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক প্রকাশিত হয়।

তিনি ভূগোল বিষয়ে গ্রন্থ রচনা করেন। ১৯১১ সালে ঢাকার টিচার্স ট্রেনিং সেন্টারে ভূগোলের অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন তিনি। ১৯১৭ সালে কলকাতা টিচার্স ট্রেনিং স্কুলে প্রধান শিক্ষকের পদে নিয়োগ লাভ করেন। ১৯২১ সালে ঢাকা মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের প্রথম কর্মধ্যক্ষ পদে নিযুক্ত হন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এ পদে তিনি বহাল ছিলেন। ইমদাদুল হক ১৯০৪ সালে খুলনা শহরে মৌলভী আব্দুল মকসুদ সাহেবের জৈষ্ঠ্য কন্যা সামসুন্নেসা খাতুনকে বিয়ে করেন।

কাজী ইমদাদুল হকের ৫ ছেলে কাজী আনারুল হক, কাজী সামছুল হক, কাজী আলাউল হক, কাজী নুরুল হক, কাজী টুকু এবং ২ মেয়ে জেবুন্নেছা ও লতিফুন্নেছা। কাজী ইমদাদুল হকের ছেলে কাজী আনারুল হক তৎকালীন শিক্ষা মন্ত্রী ছিলেন। শিক্ষা বিভাগের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান ও উদ্ভাবনী প্রতিভার স্বীকৃতি স্বরূপ তৎকালীন বৃটিশ সরকার কাজী ইমদাদুল হককে ১৯১৯ সালে খান সাহেব এবং ১৯২৬ সালে খান বাহাদুর উপাধীতে ভূষিত করেন।

ইমদাদুল হকের স্মরণীয় সাহিত্যকর্ম তার একমাত্র উপন্যাস ‘আব্দুল্লাহ’। ১৯২৬ সালে কিডনী রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০ মার্চ মাত্র ৪৪ বছরেরও কম বয়সে তিনি কলকাতায় হেকিমী মতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। কাজী ইমদাদুল হককে কলকাতার গোবরা কবরস্থানে তার মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হয়।

এই সংবাদ টি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
আমাদের এই খানে প্রকাশিত সংবাদ সম্পুর্ন আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোনো প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পুর্ন দায়ী থাকবে নিউজ প্রেরণ কারী সাংবাদিক।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It
error: Content is protected !!